আমরা ও আমাদের প্রজন্মান্তর।

0
469

১.

কয়েকমাস আগের কথা।
একটা মিলনায়তনে নাটক দেখছিলাম।
পিছনে কয়েকজন তরুণ নাটক চলাকালীন
খুব বিরক্ত করছিল।

হাসাহাসি করে, শিস বাজায়,
নাটকের মেয়েরা রসিক ডায়লগ দেলে
উচ্চস্বরে ডাক দিয়ে বলে, ও চুমকি, ভাল্লাগছে।

এরকম পরিবেশে নাটক উপভোগ করার অভ্যাস আমার ছিল না।
বাধ্য হয়েই নাটকের শেষে তাদের কাছাকাছি গেলাম।

বুঝতে চেষ্টা করলাম তারা কতটা খারাপ।
গুন্ডা পান্ডা হলে, বুঝালেও বুঝবে না।
প্রতিবাদ করে হেনস্তা হবার দরকার কি।
তাই তাদের কথাবার্তা গুলো শুনলাম।

যতটা খারাপ ভাবছিলাম, ততটা না। স্কুলের পোলাপান।
এদের বয়স তো মজা করার, তাই একটু আদরের সুরেই বললাম। কেমন লেগেছে নাটক।
একজনের উত্তর, জাক্কাস ভাইয়া।
আমি হাসলাম। বললাম, তোমরা কি অভিনয় পারো?
সবাই জানালো, তারা নিজেরাই নাটক করে।
ইউটিউবিং করে, তাদের আড্ডার আলোচনার বিষয়বস্তু সেরকমই। বললাম, তোমাদের দুয়েকটা ইউটিউব ভিডিও কি দেখানো যাবে?
তারা খুব আগ্রহ নিয়ে দেখালো।
যা বুজলাম, যা জানলাম, যা দেখলাম। তার সারসংক্ষেপ হলো,

“প্রজন্ম এখন আর নাটক দেখে না।
শেখার আগেই নাটক করে….. ”

২.
প্রজন্মান্তর বলে একটা ব্যাপার
আজকাল খুব ভাবায়,
সমাজের কিছু অসংগতি ভাবনাকে আরো প্রকট করে তুলছে।

আমরা যা না,
তার চেয়ে বেশি নিজেকে উপস্থাপন করি।
এতে করে ভিতরটা ভিত্তিহীন থেকে যাচ্ছে।

আর কাঁচাপাকা রসদ নিয়ে সামনের দিনগুলো
পাড় করা কত কঠিন, তা ভুক্তভোগি মাত্রই জানে।

সমকালীন প্রজন্ম যদিও খুব দ্রুতই এগিয়ে যাচ্ছে,
তবে সময়ের কাছে তো সবাইকে জবাবদিহি করতেই হয়।

আর সেটা সবারই কর্মফল।
©
আতিক রহমান

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here