বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে বরগুনার পুলিশ সুপার মোঃ মারুফ হোসেন

0
134

পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন (পিপিএম)স্যার কর্মদক্ষতা স্বীকৃতি স্বরূপ প্রেসিডেন্ট পদকসহ পেয়েছেন বিভিন্ন সম্মানজনক সম্মাননা স্বারক। ২২তম (বিসিএস) পুলিশ ক্যাডার হিসিবে ২০০৩ সালের ১০ ডিসেম্ভর বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমী সারদা রাজশাহী ট্রেনিং শেষে ২০০৫ সালে (সিআইডিতে) যোগদান করেন।

২০০৬ সালে (সিএমপিতে) এসি হেটকোয়ার্টার এসি, ফোর্স এসি, সাপ্লাই ও এসি পাঁচলাইশ জোনের দায়িত্ব পালন করেন নিষ্ঠার সাথে। ২০০৭ সালে র‍্যাব-৭ এর সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে মাদক,সন্ত্রাস,ও জঙ্গি দমনে ব্যাপক প্রশংসা অর্জনকরেন।২০০৮ সালে (ডিএমপির এসি, ডিবি) হিসেবে গুলশান জোনে যোগদান করেন।

সাফল্যের ধারাবাহিতায় (এসি,ডিবি হিসেবে মিরপুর জোনে) যোগদান করেন।২০০৯ সালে লাইব্রেরিয়া মিশনে যোগদান করেন। ২০১১সালে ট্রাফিক এন্ড ড্রাইভিং (টিডিএস) স্কুলে কমান্ড্যাট এর
দায়ীত্ব পালন করেন।২০১২ সালে দাফু’র মিশনে রুল-অব’ল ইউনিটের ওআইসি প্লানিংয়ের দায়ীত্ব পালন করেন।২০১৪ এডিসি হিসেবে এসএমপি, সিলেটে যোগদান করেন। এসএমপি’তে তিন”মাস সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করার পর লক্ষীপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি ২০১৫ সালে ডিএমপি’তে বাংলাদেশ সচিবালয় (এডিসি)হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর পদোউন্নতি পেয়ে ২০১৬ সালে ডিসি (এমটিও সরবরাহ)ও ডিসি (ডিবি) সিএমপিতে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।এর পরে ১৩-০৮-২০১৮খ্রি: থেকে বরগুনার পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছে অদ্যাবধি।

চাঞ্চল্যকর রিফাত শরিফ হত্যা মামলার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতারের মাধ্যমে বিচারকের কাঠগড়ায় দাড় করিয়েছেন।
অসহায় মানুষদেরকে আর্থিক ও আইনি সহযোগীতা দিয়ে হয়ে উঠেছেন সকলের শ্রোদ্ধাভাজন। আপনার সততা,দক্ষতা,মানবিকতার সুনাম ছড়িয়ে আছে জেলার সর্বত্র।

বলাবাহুল্য তাঁর কঠোর নজরদারির কারনেই বরগুনার আইন শৃঙ্খলা রয়েছে খুবই শান্ত।
যার ফলশ্রুতিতে তিনি বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার
নির্বাচিত হয়েছেন।

তথ্যসূত্র: সংগ্রহীত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here